দশের লাঠি একের বোঝা’ পুরনো সেই প্রবাদের মতোই গতকাল রংপুর জেলা ছাত্রলীগের কর্মীরা চমকে দিয়েছে মিঠাপুকুর উপজেলার ৩ নং পায়রাবন্দ ইউনিয়নের মানুষকে। কৃষক সুধীর চন্দ সাধনের ২ বিঘা জমির ধান নিমিষেই কেটে মাড়াই করে গোলায় তুলে দিল অর্ধশত ছাত্রলীগ নেতাকর্মী। এরা বঙ্গবন্ধুর সৈনিক, দেশরত্ন শেখ হাসিনার কর্মী।

বাংলার মাটি ও মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধু কন্যার মমতা ও ভালোবাসা যেমন আছে এমনি তার কর্মীদেরও রয়েছে প্রিয় নেত্রী নির্দেশের প্রতি অগাধ শ্রদ্ধা। তাই কৃষকের ২ বিঘা জমির ধান কাটতে হবে এমন খবর আসতেই মুহূর্তেই তৈরি হয়ে গেল অর্ধশত ছাত্রলীগ কর্মী। কাস্তে হাতে স্কুল-কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া কর্মীরা পুরোদস্তুর কৃষিশ্রমিক হয়ে গেল মুহূর্তেই। কৃষক সুধীরের সোনালী ফসল গোলায় তুলে দিয়ে ফিরে গেল ছাত্রলীগ কর্মীরা। আর সাথে নিয়ে গেলো ইসলাম গ্রামের শত শত মানুষের ভালোবাসার, প্রিয় নেত্রীর জন্য মানুষের অফুরন্ত দোয়া।

এ বিষয়ে রংপুর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান সিদ্দিকী রনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা প্রতিদিনই রংপুরের বিভিন্ন উপজেলা থেকে প্রিয় নেত্রীর নির্দেশ পালন করার জন্য আমার সঙ্গে ছুটে আসছেন এবং রাতদিন কাজ করছেন । তাদের সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। সবশেষে বলব গগনে যতই মেঘ থাকুক, যতই ক্রান্তির সৃষ্টি হোক, কৃষকের নিজেদেরকে একা ভাবার কোন সুযোগ নেই। পাশে আছি আমরা রংপুর জেলা ছাত্রলীগ।’

সাংস্কৃতিক সম্পাদক অভিনাশ কুমার বলেন ‘আমরা দেশরত্ন শেখ হাসিনার কর্মী। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে ধারণ করে শস্য শ্যামল সোনার বাংলা গড়তে আমার বদ্ধপরিকর।’

ধান কাটা কর্মসূচিতে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মেহেদী হাসান সিদ্দিকী রনির নেতৃত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন সাংগঠনিক সম্পাদক আদনান হোসেন, আবু হোসেন, মোহাইমিনুল রহমান চৌধুরী মিথুন প্রচার সম্পাদক মোকতার এলাহি মুরাদ সাংস্কৃতিক সম্পাদক অভিনাশ কুমার রায় স্কুল ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক আসাদুজ্জামান সজিব, স্বাস্থ্য সম্পাদক ইয়াসির আরাফাত শুভ ছাত্রলীগ নেতা আল শাহরিয়ার, মাহমুদুর রহমান অভি, মেহেদী হাসান জিম ,সালমান , কিম শাওন, মাহফুজার রহমান রাকিব, নয়ন ইসলাম,তৌকির, রেজুয়ানুর রহমান রিদয়, কাজল মহন্ত, জয় মহন্তসহ অর্ধশত নেতাকর্মী।